সর্বপ্রথম সকল নিরাপত্তামূলক সংশোধনী কাজ সম্পন্নকারী কারখানাসমূহের নাম ঘোষনা করেছে একর্ড ২৩ মে ২০১৫

২০ মে, ২০১৫, একর্ডের ইঞ্জিনিয়ারগন যাচাই করে পেয়েছেন বাংলাদেশে একর্ডের তালিকাভুক্ত দুইটি কারখানায় প্রাথমিক পরিদর্শনে চিহ্নিত সকল নিরাপত্তা সমস্যার সংশোধনী কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। এই মাইলফলক অর্জনকারী প্রথম কারখানা ২ টি হলো: Concord Fashion Export Ltd. / Jeacon

আরও পড়ুন

একর্ড (ACCORD) বাংলাদেশেরকারখানাগুলিরপ্রারম্ভিকপরিদর্শনসম্পূর্ণকরেগুরুত্বপূর্ণমাইলফলকেপৌঁছেছে

একর্ড গর্বের সাথে ঘোষণা করছে যে, একর্ড উত্‍পাদনকারী কারখানাগুলির প্রাথমিক পরিদর্শন সেপ্টেম্বর ২০১৪ এর শেষে সম্মতিকৃত সময়সীমার মধ্যে সম্পূর্ণ করা হয়েছে৷পরিদর্শনকৃত ১১০৬ -টি কারখানার মধ্যে, ৪০০-টি কারখানা ও স্বাক্ষরকারী কোম্পানীর দ্বারা সংশোধনমূলক কার্যধারা পরিকল্পনাগুলি (CAPs) চূড়ান্ত করা হয়েছে, তা একর্ড চিফ সেফটি ইন্সপেক্টর (CSI) -এর দ্বারা অনুমোদিতও হয়েছে৷

আরও পড়ুন

পরিকল্পিত অর্থসম্পদের বিষয়ে ভুল রিপোর্টিং দূর করার জন্য অ্যাকর্ডের ব্যাখ্যা

29 জুলাই, 2014 তারিখে পোস্ট করা হয়েছে
অ্যাকর্ড, 31 ডিসেম্বরে শেষ হওয়া বছরের জন্য তার প্রথম অ্যানুয়াল রিপর্টে কাজের প্রারম্ভিক পর্যায়ের ব্যায়ের বিবরণ ছাড়াও, 31 ডিসেম্বর 2014 পর্যন্ত বর্তমান আর্থিক বছরের আয় ও ব্যায়ের পূর্বাভাষ দিয়েছে৷

সংবাদমাধ্যমের কিছু ক্ষেত্রে, অযথার্থ প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে এবং সামান্য মাত্রায় অপব্যাখ্যা করা হয়েছে যা দূর করার জন্য আমরা নিম্নলিখিত মুখ্য বিষয়গুলি তুলে ধরছি৷

আরও পড়ুন

অ্যাকর্ডের কারখানা পরিদর্শনের “গুরুত্বপূর্ণ ফলাফল” প্রকাশ করা

বাংলাদেশের যে কারখানাগুলি অ্যাকর্ডে স্বাক্ষরকারী ব্র্যাণ্ড ও রিটেলারদের জন্য উত্পাদন করছে সেগুলির অগ্নি, বৈদ্যুতিক এবং ভবনের কাঠামোগত নিরাপত্তা যাচাইয়ের জন্য অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যাণ্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ স্বতন্ত্র, ইঞ্জিনিয়ারিং পরিদর্শন করছে৷ এখানে যে বিবৃতিটি দেওয়া হয়েছে তাতে অ্যাকর্ডের একটি কারখানা পরিদর্শনে যে “গুরুত্বপূর্ণ ফলাফল” পাওয়া গেছে তার বিবরণ আছে৷

অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর করার প্রথম বার্ষিকী

এক বছর পূর্বে, বাংলাদেশের RMG কারখানাগুলিকে নিরাপদ করার জন্য রেডিমেট গারমেন্ট (RMG) শিল্পের 17টি বিশ্বব্যাপী ব্র্যাণ্ড ও রিটেলার এবং 2টি বিশ্বব্যাপী ইউনিয়ন ও তাদের জাতীয় RMG সংযুক্ত সংগঠন একটি অতুলনীয় চুক্তিতে স্বাক্ষর করে৷ এক বছর পরে, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, এশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ার 172টি বিশ্বব্যাপী ব্র্যাণ্ড ও রিটেলার এই আইনত বাধ্যতামূলক অ্যাকর্ডে যোগ দিয়েছে৷ একত্রে, আমরা বাংলাদেশে একটি নিরাপদ পোশাক শিল্প গড়ে তুলছি৷

RMG কারখানাগুলি নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত অ্যাকর্ডের কাজ সম্পন্ন হবে না৷ 2013 সালের নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে কাজ চালু হয়, এবং অ্যাকর্ডের ব্র্যাণ্ডগুলির জন্য উত্পাদনকারী কারখানাগুলিতে অগ্নি, বৈদ্যুতিক এবং ভবন নিরাপত্তার বিপত্তি চিহ্নিত করার জন্য একটি পূর্ণ পরিদর্শন কর্মসূচী চলছে৷ ইতিমধ্যে 550টির বেশি কারখানার পরিদর্শন সম্পন্ন হওয়াতে, এই কর্মসূচী 2014 সালের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে 1500 কারখানা পরিদর্শন করার লক্ষ্য অর্জন করবে৷

আরও পড়ুন

ইউনাইটেড ট্রাউজার্স লিমিটেডের দুর্ঘটনার উপর অ্যাকর্ডের বিবৃতি

গভীর দুঃখের সাথে অ্যাকর্ড জানতে পেরেছে আশুলিয়ার ইউনাইটেড ট্রাউজার্স লিমিটেডে লোডার হিসাবে নিয়োজিত একজন কর্মীর মৃত্যু হয়েছে৷ অ্যাকর্ডকে জানানো হয় কর্মীটি মারা যান যখন আলাদা একটি একতলা গুদাম ঘর/ক্যান্টিন ভবনের মাঝখানের দেওয়াল ধসে পড়ে একটি ডেলিভারি বাহন থেকে নামানো কাপড়ের রোলের ওজনের দরুন৷ ধসে পড়ার ঘটনাটি 10মে শনিবার বিকেলের দিকে ঘটে৷

কর্মীটির পরিবার ও উত্তরজীবি, তার বন্ধুবান্ধব, সহকর্মী এবং সহযোগীদের জন্য অ্যাকর্ড আমাদের আন্তরিক সমবেদনা জানায়৷ যে কর্মীরা আহত হয়েছেন আমরা তাদের জন্য সহানুভূতি ও উদ্বেগ জানাই৷ আহতদের সংখ্যা ও তাদের জখমের পরিধি সুনিশ্চিত করার জন্য অ্যাকর্ড কাজ করছে৷ প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী 5 জন কর্মী আহত হয়েছেন৷

এই মর্মান্তিক ঘটনা পুনরায় RMG কারখানাগুলির নিরাপত্তার মূল্যায়ন করার আশু প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে এবং এই ধরনের নিরাপত্তার সমস্যাগুলির যথাযথ সংশোধন করা নিশ্চিত করার জন্য নিষ্ঠার সাথে কাজ করা হচ্ছে৷ এই অতি সাম্প্রতিক বিপর্যয়টি দেখায় প্রয়াস করে যাওয়া হলেও, আমাদের অনেক কাজ এখনও বাকি৷বাংলাদেশের RMG কারখানাগুলিকে নিরাপদ করার প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা অ্যাকর্ড পুনর্বাচন করে৷
 

কারখানা পরিদর্শনে পাওয়া গুরুত্বপূর্ণ তদন্তের ফলাফলের উপর অ্যাকর্ডের বিবৃতি যার দরুণ কাজ মুলতুবি রাখতে হয় এবং কারখানা ভবনগুলি খালি করতে হয়

অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ (অ্যাকর্ড) 160টির বেশি বিশ্বব্যাপী ব্র্যান্ড ও রিটেলার এবং বিশ্বব্যাপী ও জাতীয় RMG শিল্পের ইউনিয়ন সংঘগুলির মধ্যে একটি বাধ্যতামূলক দায়বদ্ধতা আনে পরিহার্য বিপর্যায় নিবারণ করার জন্য যেমন রানা প্লাজা ভবন ধসে পড়া এবং তাজরিন ফ্যাশন্স লিঃ–এর কারখানায় আগুন লাগার মত ঘটনা আর কখনও বাংলাদেশের RMG কারখানাগুলিতে না ঘটে।

যে কারখানাগুলি অ্যাকর্ডের জন্য উত্পাদন করে সেগুলির পরিদর্শন করা হয় অগ্নি, বৈদ্যুতিক এবং ভবনের কাঠামোগত নিরাপত্তার ঝুঁকি চিহ্নিত করার জন্য যা অ্যাকর্ডের শর্তগুলির একটি অখন্ডিত উপাদান। প্রত্যাশা অনুযায়ী অ্যাকর্ডের পরিদর্শনগুলি এই তিনটি ক্ষেত্রেই নিরাপত্তার ঝুঁকি চিহ্নিত করছে।

অনেকগুলি অনুসন্ধানের ফলাফল, যেমন ওজন কমানো এবং ওজন ব্যবস্থাপনার পরিকল্পনাগুলি মেনে চলা অনায়াসে সংশোধন করা যেতে পারে এবং তারজন্য খুব বেশি খরচ হয় না। অন্য ফলাফলগুলি হল পরিষ্কার করা, বন্দোবস্ত করা সংক্রান্ত, এবং তারপরে সেগুলি রক্ষণাবেক্ষণের প্রথায় রাখা। এগুলির মধ্যে আছে যথাযথভাবে বৈদ্যুতিক তার জোড়া এবং সিল করা এবং তার ও সার্কিটগুলি ধুলো ও ঝুলমুক্ত রাখা। অন্য অনুসন্ধান এবং নিরাপত্তার প্রয়োজনগুলির জন্য যথেষ্ট ব্যয় করতে হবে। যেমন: ফায়ার ডোর বসানো, স্বয়ংক্রিয় ধোঁয়া শনাক্তকারী এবং আগুনের অ্যালার্ম ব্যবস্থা, এবং কারখানার ভবনগুলি থেকে অগ্নি সুরক্ষিত বহির্গমন স্থাপন করা।

আরও পড়ুন

স্টিয়ারিং কমিটির ত্রৈমাসিক কার্যবিবরণী এবং বৈঠকের প্রতিবেদনগুলির ঘোষণা

অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ পূর্ণ স্বচ্ছতার প্রতি দায়বদ্ধ, তাই তারা স্টিয়ারিং কমিটির সকল কার্যবিবরণী প্রকাশ করবে। স্টিয়ারিং কমিটির ব্র্যান্ডের এবং শ্রমিকদের প্রতিনিধিরা এবং অ্যাকর্ডের একজন স্বাক্ষরকারী সাক্ষী তিন মাস অন্তর মুখোমুখি বৈঠক করেন। সর্বশেষ বৈঠক 10 এপ্রিল 2014 তারিখে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আপনি এখানে বৈঠকের কার্যবিবরণীর একটি নকল পেতে পারেন।
 
ঢাকায় থাকাকালীন 7 এপ্রিল 2014 তারিখে শুরু হওয়া সপ্তাহে, অ্যাকর্ডের স্টিয়ারিং কমিটি, স্বাক্ষরকারী এবং প্রাসঙ্গিক শরিকদের সাথেও বৈঠক করেন। তাদের বৈঠকগুলির একটি সারাংশ প্রতিবেদন আপনি এখানে পেতে পারেন।

 

রানা প্লাজা ভবন ধসে পড়ার পর প্রথম বার্ষিকীর উপর বিবৃতি

রানা প্লাজার ভুক্তভোগীদের স্মরণ করুন। 24 এপ্রিল 2014 তারিখে রানা প্লাজা ভবন ধসে পড়ার প্রথম বার্ষিকী হবে। এই মর্মান্তিক ঘটনার দরুণ ভুক্তভোগীদের পরিবারের, আহতদের এবং গোটা দেশের যে ক্ষতি, যাতনা এবং শোক হয়েছে, সেই কারণে আমাদের সমবেদনা হয় বাংলাদেশের সব মানুষের জন্য। আমরা 1134 জন মৃত ব্যক্তি, 2000-এর বেশি আহত মানুষ এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের স্মরণ করি, যাদের এই ক্ষতির স্মৃতি সামলাতে হয় এবং প্রতিদিন এই মর্মান্তিক ঘটনার প্রভাব অনুভব করতে হয়।

15 মে 2013 তারিখে বাংলাদেশ অ্যাকর্ড উদ্বোধন করার পর, নিরাপদ বাংলাদেশী গারমেন্ট শিল্পের দিশায় আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড, ট্রেড ইউনিয়ন এবং শ্রমিক সংগঠনগুলি স্থানীয় পক্ষদের সাথে নিবিড় সহযোগিতায় একটি যাত্রা শুরু করেছে। আমাদের সর্বজনীন উদ্দেশ্য হল একটি কাজের পরিবেশ সৃষ্টি করা যাতে কোন কর্মীকে আগুন ভবন ধসে পড়া ও অন্য দুর্ঘটনার জন্য ভয় পেতে না হয়, যুক্তিসংগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা পদ্ধতির দ্বারা নিবারণ করা যেতে পারে। সকল প্রাসঙ্গিক শরিকদের সাথে মিলিতভাবে, আমরা জানি আমরা তা করতে পারি – এবং অবশ্যই – চিরকালের জন্য ব্যবস্থা বদলাবো। অ্যাকর্ড প্রবল উদ্যমে এগিয়ে চলেছে, একটি অভূতপূর্ব মাত্রার কর্মসূচী, স্বতন্ত্রতা, কঠোরতা এবং স্বচ্ছতার সাথে। আগুন, বৈদ্যুতিক এবং কাঠামোগত নিরাপত্তার জন্য 250 টির বেশি কারখানা পরিদর্শন করা হয়েছে, এবং প্রতিকার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আটটি কারখানায়, অ্যাকর্ডের পরিদর্শনের দরুণ কর্তৃপক্ষদের সামাজিকভাবে ভবনগুলি খালি করতে হয়েছে যতক্ষণ না যথেষ্ট কাঠামোগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায় এবং কর্মীদের জীবনহানির বিপদ আর না থাকে।

আরও পড়ুন

সংবাদমাধ্যমের অনুসন্ধান

আপনার নাম (আবশ্যক)

আপনার ই-মেল (আবশ্যক)

বিষয়

আপনার বার্তা (আবশ্যক)

যাচাই করুন
captcha

এন্টার করুন

যোগাযোগ বিবরণ:

ই-মেল টিপুন – media@bangladeshaccord.com

Joris Oldenziel, Head of Public Affairs and Stakeholder Engagement
+31 (0) 20 520 7431