মে ২০১৮ এর পর একর্ড অব্যাহত থাকা প্রসঙ্গে বিবৃতি

বাংলাদেশ একর্ডের নিরাপত্তা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে
মে ২০১৮ এর পর একর্ডের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার অনুমতি দিয়েছে সরকার
স্থানীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা যখন কারখানা পরিদর্শন, সংস্কার কাজে বাধ্য করা, এবং শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে তাদের পূর্ণ সামর্থ্য প্রদর্শন করবে, তখন একর্ড বাংলাদেশ ছেড়ে চলে যাবে

 
বাংলাদেশ সরকার সম্মত হয়েছে যে, যতদিন পর্যন্ত স্থানীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা যথাযথভাবে প্রস্তুতির নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে না পারবে ততদিন বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড (দ্য একর্ড) কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

একর্ডের স্বাক্ষরকারী ব্র্যান্ড এবং ট্রেড ইউনিয়ন, বিজিএমইএ, বাণিজ্য ও শ্রম মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীগণ গত ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত সভায় এই সম্মতিতে পৌঁছান। যেহেতু সকল পক্ষ উপলব্ধি করে যে, একর্ড স্বাক্ষরকারী ব্র্যান্ডসমূহের জন্য উৎপাদনকারী কারখানার শ্রমিকদের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব জাতীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থার হাতে দায়িত্বপূর্ণভাবে হস্তান্তর করার পূর্বে যথেষ্ট পরিমাণে সক্ষমতা অর্জন করা প্রয়োজন, সেহেতু মে ২০১৮ এর পর কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে প্রস্তুত একর্ড। জুন ২০১৭ তে, আন্তর্জাতিক পোশাক ব্র্যান্ড ও খুচরা বিক্রেতাগণের একটি দল এবং ২ টি আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন ২০১৮ একর্ডে স্বাক্ষর করে, যা মে ২০২১ পর্যন্ত বাংলদেশে একর্ডের নিরাপত্তা কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে। এখন পর্যন্ত ৪৭ টি ব্র্যান্ড এবং খুচরা বিক্রেতাগণ স্বাক্ষর করেছে যার মধ্যে বর্তমানের ১২০০ টি কারখানা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। স্বাক্ষরকারী ব্র্যান্ড ও ট্রেড ইউনিয়নসমূহ বাংলাদেশ সরকার, বিজিএমইএ, ইন্ডাস্ট্রিঅল বাংলাদেশ এর সহযোগী ইউনিয়নসমূহ, এবং আইএলও এর সাথে সম্পৃক্ত হয়ে প্রয়োজনীয় শর্তসমূহ বাস্তবায়ন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যা পূরণ হলে একর্ডের কার্যক্রমসমূহ জাতীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা সম্ভব হবে।
আরও পড়ুন

বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড এর দ্বিতীয় মেয়াদে কোম্পানি এবং ট্রেড ইউনিয়নসমূহের ঐক্যমত

আমস্টারডাম/ ঢাকা, ২৯ জুন ২০১৭। কোম্পানি এবং ট্রেড ইউনিয়নসমূহ ২য় মেয়াদে বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড (“একর্ড”) এর জন্য ঐক্যমত পোষণ করেছে। আগামী মে ২০১৮ তে বর্তমান একর্ডের মেয়াদ শেষ হলে এই চুক্তিটি কার্যকর হবে। বাংলাদেশের কারখানাগুলোকে নিরাপদ করে তুলতে কোম্পানি ও ট্রেড ইউনিয়নগুলোর মধ্যে অভূতপূর্ব, আইনগতভাবে বাধ্যতামূলক চুক্তি একর্ড।
আরও পড়ুন

একর্ডের ৪ বছরে বাংলাদেশে পোশাক শিল্পের কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি

চার বছরে বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড বাংলাদেশের পোশাক কারখানাসমূহে উল্লেখযোগ্য উন্নতিসাধন করেছে এবং কারখানায় অমীমাংসিত নিরাপত্তা সমস্যা সমাধানে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমান চুক্তির শেষ বছরে পদার্পণ করে কারখানাগুলোকে সংস্কার কাজ সম্পন্ন করতে সহায়তা করার জন্য একটি সরাসরি আর্থিক সহায়তা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

নিউজলেটার জুলাই ২০১৬

স্বাক্ষরকারী, কারখানা এবং একর্ডের কারখানা নিরাপত্তা কার্যক্রমে আগ্রহী সকলের জন্য বাংলাদেশ একর্ডের নিউজলেটার।

পরিদর্শন
একর্ডে এখন ১০০ জনেরও বেশি ইঞ্জিনিয়ার রয়েছে, যারা প্রতি মাসে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ টি ফলো- আপ পরিদর্শন করে থাকে। একটি কারখানা গড়ে তিন মাসে অন্তত একবার পরিদর্শিত হয়।
প্রাথমিকভাবে একর্ডের তালিকাভুক্ত হওয়ার পরে ৩ থেকে ৪ মাসের মধ্যেই স্বাক্ষরকারী কোম্পানি এবং কারখানা একটি প্রাথমিক পরিদর্শন আশা করতে পারেন।
আরও পড়ুন

Subscribe to our Newsletter



রানা প্লাজা এবং ঢাকায় স্টিয়ারিং কমিটির অবস্থান প্রসঙ্গে একর্ডের বিবৃতি

২৩ এপ্রিল ২০১৬

২৪শে এপ্রিল, ২০১৬ তারিখে তিন বছর পূর্ণ হবে মর্মান্তিক রানা প্লাজা ধ্বসের যা কেড়ে নিয়েছিল ১১০০’রও বেশী জীবন এবং আহত হয়েছিল আরও শত শত মানুষ। একর্ডের স্মরণে এবং প্রার্থনায় রয়েছে সেই নিহত ও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ এবং তাদের প্রিয়জনেরা।

আরও পড়ুন

ত্রৈমাসিক আপডেট মার্চ ২০১৬

স্বাক্ষরকারী, কারখানা এবং একর্ডের কারখানা নিরাপত্তা কার্যক্রমে আগ্রহী সকলের জন্য বাংলাদেশ একর্ডের নিউজলেটার।

পরিদর্শন
একর্ডে স্বাক্ষরকারী কোম্পানিগুলো কারখানা তালিকায় নতুন কারখানা অন্তর্ভুক্ত করছে এবং এপ্রিল ২০১৬ হতে নতুন এক দফায় প্রাথমিক পরিদর্শন পরিচালিত হবে। বর্তমানে সর্বমোট ১৬৬১ টি কারখানা একর্ডের আওতাভুক্ত রয়েছে।

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ একর্ড মাসিক আপডেট – জুলাই ২০১৫

স্বাক্ষরকারী, কারখানা এবং একর্ডের কারখানা নিরাপত্তা কার্যক্রমে আগ্রহী সকলের জন্য বাংলাদেশ একর্ডের নিউজলেটার।

আরও পড়ুন

বাংলাদেশে তৈরী পোশাক কারখানায় নিরাপত্তা উন্নয়নের লক্ষ্যে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার লোন প্রদানের জন্য ইন্টারন্যাশনাল ফাইনান্স কর্পোরেশন (আইএফসি) এর সাথে একর্ডের সহযোগিতামূলক চুক্তি

বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড ১৫০০ টির বেশি পোশাক কারখানার সাথে সম্পৃক্ত ২০০ এর বেশি আন্তর্জাতিক পোশাক ব্র্যান্ড ও রিটেইলা এবং ২ টি গ্লোবাল ইউনিয়ন ও তাদের সাথে জাতীয় পর্যায়ে তৈরী পোশাক শিল্পের সংশ্লিষ্ট সহযোগীদের নিয়ে স্বাক্ষরিত একটি অভূতপূর্ব ও আইনত বাধ্যতামূলক চুক্তি। এই কারখানাগুলোর সবগুলোতে অগ্নি, বৈদ্যুতিক এবং কাঠামোগত নিরাপত্তা পরিদর্শন সম্পন্ন হয়েছে। সংশোধনী কর্ম পরিকল্পনা (ক্যাপস) তৈরী করা হয়েছে যেখানে কিভাবে এবং কতদিনের মধ্যে চিহ্নিত নিরাপত্তা সমস্যাগুলোর সমাধান করতে হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা রয়েছে। পরিদর্শিত কারখানাগুলোতে নিরাপত্তা সমস্যার সমাধান করা একটি ব্যাপক কর্মকান্ড এবং এর জন্য উল্লেখযোগ্য পরিমানে রিসোর্সের প্রয়োজন।
আরও পড়ুন

বিবৃতি- বাংলাদেশে অগ্নি ও ভবন নিরাপত্তায় একর্ড

২৫ জুন ২০১৫- বাংলাদেশে একর্ড স্টিয়ারিং কমিটির সভায় তৈরী পোশাক কারখানাগুলো নিরাপদ করে গড়ে তুলতে সংশোধনী কাজ তরান্বিত করা এবং সুদৃঢ়ভাবে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা।

একর্ড এর স্টিয়ারিং কমিটি ঢাকায় গত ২২ থেকে ২৪ জুন স্বাক্ষরকারী প্রতিনিধিগন এবং বাংলাদেশী মূল সংগঠকদের সাথে অগ্রগতি নিয়ে এবং এক্ষেত্রে আরও এগিয়ে যাওয়ার উপায় নিয়ে আলোচনায় মিলিত হন। একর্ড এর চুক্তি বাস্তবায়ন এবং পোশাক কারখানাগুলো নিরাপদ রাখতে কোম্পানি এবং স্বাক্ষরকারী ট্রেড ইউনিয়ন, তৈরী পোশাক কারখানাসমূহ, এবং অন্যান্য মূল সংগঠকদের সাথে কাজ করার বিষয়টি স্টিয়ারিং কমিটি পুণরায় নিশ্চিত করেছে।

আরও পড়ুন

সংবাদমাধ্যমের অনুসন্ধান

আপনার নাম (আবশ্যক)

আপনার ই-মেল (আবশ্যক)

বিষয়

আপনার বার্তা (আবশ্যক)

যাচাই করুন
captcha

এন্টার করুন

যোগাযোগ বিবরণ:

ই-মেল টিপুন – media@bangladeshaccord.com

Joris Oldenziel, Head of Public Affairs and Stakeholder Engagement
+31 (0) 20 520 7431