সচরাচর জিজ্ঞাস্য

অ্যাকর্ডটি কী?
অ্যাকর্ডটি হল আন্তর্জাতিক ট্রেড ইউনিয়ন ইনডাস্ট্রিঅল এবং UNI গ্লোবাল, বাংলাদেশের ট্রেড ইউনিয়নগুলি, এবং আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড ও রিটেলারদের (কোম্পানিগুলির) মধ্যে একটি আইনত বাধ্যতামূলক চুক্তি। এই চুক্তির সাক্ষীরা হল আন্তর্জাতিক NGOগুলি, যেমন ক্লিন ক্লোদস্ ক্যাম্পেন, ওয়ার্কার্স রাইটস্ কনসরটিয়াম এবং মাকিলা সলিডারিটি নেটওয়ার্ক। ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন (ILO) স্বতন্ত্র সভাপতি হিসাবে কাজ করে।

অ্যাকর্ডটির লক্ষ্য কী?
অ্যাকর্ডটির লক্ষ্য হল পাঁচ বছরের জন্য বাংলাদেশী রেডিমেড গারমেন্ট শিল্প নিরাপদ ও নিরবচ্ছিন্ন থাকা নিশ্চিত করার জন্য স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা পদ্ধতির জন্য যুক্তিসংগত একটি কর্মসূচী রূপায়ণ করা।

অ্যাকর্ডের কোম্পানি সদস্য কারা?
90 টির বেশি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড এবং রিটেলার এই অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর করেছে। স্বাক্ষরকারীদের পৃষ্ঠায় তার একটি পূর্ণ তালিকা পাওয়া যাবে।

কিভাবে একর্ড নিহিত করা হবে?
অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর বাবদ কোম্পানিগুলির খরচ নীচে দেওয়া হয়েছে৷ অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন এই টাকা পরিদর্শন ও প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর জন্য খরচ হবে৷

রেণী

বার্িষক মূল্য
(মার্িকন ডলাের)
বার্ষিক পারিশ্রমিক
(মার্কিন ডলারে)

7

500 মিলিয়নের বেশি 500,000

6

250 থেকে 500 মিলিয়নের মধ্যে 375,000

5

100 থেকে 250 মিলিয়নের মধ্যে 175,000

4

50 থেকে 100 মিলিয়নের মধ্যে 75,000

3

25 থেকে 50 মিলিয়নের মধ্যে 37,500

2

10 থেকে 25 মিলিয়নের মধ্যে 17,500

1

1 থেকে 10 মিলিয়নের মধ্যে 10,000

0

1 মিলিয়নের কম

1,000

অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন এই টাকার অংক সংশোধন সাপেক্ষ এবং বদলাতে পারে৷ বর্তমানে কেবল প্রথম বছরের জন্য এই টাকার অংক ধার্য করা হয়েছে৷

কাঠামোগত মেরামতগুলির খরচ কীভাবে দেওয়া হবে?
অ্যাকর্ডের অধীন, কাঠামোগত মেরামত বা সংস্কারের জন্য যথেষ্ট তহবিলের ব্যবস্থা রাখা নিশ্চিত করার দায়িত্ব হল কোম্পানিগুলির। এতে অন্তর্ভুক্ত আছে জোগানদারদের সাথে বাণিজ্যিক শর্ত আপোস-আলোচনা করা কারখানাগুলির নিরাপদ কর্মস্থান বজায় রাখার জন্য আর্থিকভাবে তা সম্ভব নিশ্চিত করার জন্য এবং কোন কাঠামোগত মেরামত বা নিরাপত্তার উন্নতি মেনে চলার জন্য, এবং যেখানে যথাযথ হবে, বিকল্প উপায় ব্যবহার করা যেমন যৌথ বিনিয়োগ, ঋণ, দাতা বা সরকারি সহায়তা পাওয়া।

ভবনের পরিদর্শন কখন শুরু হবে?
নিরিখ এবং পরিদর্শন পদ্ধতির খসড়া চূড়ান্ত হওয়ার পর দ্রুত স্বতন্ত্র পরিদর্শনগুলি শুরু হবে। অ্যাকর্ডের অভিপ্রায় হল সকল প্রাথমিক পরিদর্শন-এবং, প্রয়োজনীয়, সংস্কারের পরিকল্পনা-এপ্রিল 2014–র মধ্যে সম্পন্ন করা হবে।

উপরন্তু, কিছু কোম্পানি ইতিমধ্যে তাদের নিজেদের পরিদর্শন করছে এবং এগুলির তথ্য অ্যাকর্ডের কাজে অন্তর্ভুক্ত করা হবে যেখানে যথাযথ।

প্রাথমিক পরিদর্শন কে করবে?
আন্তর্জাতিক এবং বাংলাদেশের কাঠামোগত, অগ্নি ও বৈদ্যুতিক ইঞ্জিনিয়ারিং উপদেষ্টা সংস্থা উভয় প্রাথমিক পরিদর্শন করবে। অ্যাকর্ডটি বর্তমানে নির্বাচিত কয়েকটি উপদেষ্টা সংস্থার সাথে জড়িত হচ্ছে।

কারখানার তথ্য জনসাধারণকে কখন জানানো হবে?
অ্যাকর্ডের অধীন বাংলাদেশের সব কারখানাগুলির একটি একত্রিত তালিকা 3 অক্টোবর 2013 তারিখে প্রকাশ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সরকার জানিয়েছে তারা বহু কারখানা পরিদর্শন করছেন। অ্যাকর্ডের অধীন পরিদর্শনগুলি কীভাবে এই সরকারি পরিদর্শনগুলির সাথে সম্পর্কযুক্ত হয়?
বাংলাদেশ সরকারের কারখানা পরিদর্শনের অঙ্গীকার নবীকরণ করার সিদ্ধান্তকে অ্যাকর্ড স্বাগত জানায়। অ্যাকর্ডের অভিপ্রায় হল সরকারসহ সকল প্রাসঙ্গিক অংশীদারদের সাথে কাজ করে, একটি নিরাপদ নিরবচ্ছিন্ন বাংলাদেশী রেডিমেড গারমেন্ট শিল্পের জন্য ক্ষমতা গঠন করা।

একটি পরিদর্শন যদি একটি ভবনকে বিপজ্জনক দেখায় সেই ক্ষেত্রে কী হবে?
যেখানে দেখা যায় একটি ভবন বা কাঠামো থেকে কর্মী নিরাপত্তার তাত্ক্ষণিক আশংকা আছে, তা প্রাসঙ্গিক কর্তৃপক্ষদের জানানো হবে; এবং কারখানার মালিককে উত্পাদন মুলতুবি রাখতে বলা হবে ভবনটি নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত৷ কর্মীদের জানানো হবে এবং ভবন মেরামত করাকালীন তারা বেতন পেয়ে যাবেন।

কারখানার মালিক যদি উত্পাদন মুলতুবি রাখতে রাজি না হয় সেই ক্ষেত্রে কী হবে?
কারখানার মালিক যদি উত্পাদন মুলতুবি রাখতে রাজি না হয়, তখন অ্যাকর্ডের কোম্পানি সদস্যদের তাদের ব্যবসা প্রত্যাহার করে নেওয়ার দায় থাকবে। যেখানে এর দরুণ কর্মীর কাজ চলে যায়, সেখানে ঐ কর্মীরা যাতে তাদের অন্য জোগানদারের কারখানায় চাকরি পাবার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পায় তা নিশ্চিত করার জন্য কোম্পানিগুলি যুক্তিসংগত প্রয়াস করবে।

অ্যাকর্ডে স্বাক্ষরকারী কোন কোম্পানি যদি বাংলাদেশ থেকে তাদের ব্যবসা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সেই ক্ষেত্রে কী হবে?
অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর করে, কোম্পানিগুলি অ্যাকর্ডের মেয়াদের মধ্যে অন্তত পাঁচ বছর বাংলাদেশ থেকে মাল নেবার প্রতিশ্রুতি দেয়।

অ্যাকর্ডটি কী অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স সেফটিকে স্বীকৃতি দেয়?
আমরা সকল ব্র্যান্ডকে অ্যাকর্ডে যোগ দিতে উত্সাহিত করি যেহেতু এটা একটি ত্রিপাক্ষিক, স্বচ্ছ, এবং মজবুত নিয়ন্ত্রণের কাঠামো ও ব্যবস্থা প্রদান করে। তথাপি, আমরা সকল অংশীদারদের সাথে কাজ করার জন্য দায়বদ্ধ অ্যালায়েন্সের সদস্যরাসহ, একটি নিরাপদ ও নিরবচ্ছিন্ন বাংলাদেশী রেডিমেড গারমেন্ট শিল্প নিশ্চিত করার জন্য।

অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স সেফটির সাথে অ্যাকর্ডের পার্থক্য কোথায়?

অ্যাকর্ড হল কোম্পানি এবং ট্রেড ইউনিয়নগুলির মধ্যে একটি আইনত বাধ্যতামূলক চুক্তি, এবং এতে কর্মী ও কর্মী প্রতিনিধিদের একটি কেন্দ্রীয় ভূমিকা আছে, যেমন কারখানার প্রশিক্ষণে ট্রেড ইউনিয়নের প্রত্যক্ষ যোগদান।

স্বচ্ছতার প্রতি জোরাল দায়বদ্ধতা আছে, যেমন অ্যাকর্ডের আওতায় থাকা কারখানাগুলি উদঘাটন করা, কর্মী প্রতিনিধিদের অবিলম্বে পরিদর্শনের প্রতিবেদন জানানো, এবং সকল পরিদর্শন প্রতিবেদন প্রকাশ করা।

অ্যাকর্ডের অধীন, কোম্পানিগুলি অ্যাকর্ডের আওতায় থাকা কারখানাগুলিকে নিরাপদ করার এবং কাঠামোগত মেরামত বা সংস্কারের জন্য যথেষ্ট টাকার ব্যবস্থা রাখা নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দেয়।

অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর করে, কোম্পানিগুলি অ্যাকর্ডের মেয়াদে পাঁচ বছরের জন্য বাংলাদেশ থেকে মাল নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়, এবং অন্তত প্রথম দুই বছরের জন্য অগ্রাধিকার কারখানাগুলির সাথে অর্ডারের পরিমাণ বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি দেয়।

অ্যালায়েন্সটি আইনত বাধ্যতামূলক নয় এবং তাতে ট্রেড ইউনিয়ন এবং কর্মী ও কর্মী প্রতিনিধিদের কোন ভূমিকা নেই।

পরিদর্শনের প্রতিবেদন জনসাধারণকে বা কর্মী প্রতিনিধিদের কাছে জানানো বাধ্যতামূলক নয়, যতক্ষণ না একটি প্রতিকার পরিকল্পনা ঠিক করা হয় বা আসন্ন বিপদের ক্ষেত্রে ছাড়া।

সদস্যদের কারুকে কৈফিয়ত দিতে হয় না।

নিয়ন্ত্রণ, দায়বদ্ধতা এবং স্বচ্ছতার ক্ষেত্রে এই মৌলিক পার্থক্যগুলি থাকা সত্বেও, অ্যাকর্ডটি সকল প্রাসঙ্গিক অংশীদারের সাথে কাজ করার জন্য দায়বদ্ধ অ্যালায়েন্সসহ, বাংলাদেশী পোশাক শিল্পে নিরাপত্তার উন্নতির জন্য।

অ্যাকর্ডে উল্লেখিত ক্ষুদ্র মাঝারি মাপের কোম্পানিগুলির প্রয়োজন অ্যাকর্ড কীভাবে নিশ্চিত করবে?
অ্যাকর্ডের কাঠামো বিভিন্ন কোম্পানিকে বিবেচনা করে, যারা বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন পরিমাণ মাল নেয়, তাদের আকার নির্বিশেষে। এটা কোম্পানিগুলির সদস্যতা খরচে প্রতিফলিত আছে।

সকল কোম্পানির সমান ভোট দেবার অধিকার আছে এবং অ্যাকর্ডের বিভিন্ন পরিচালন গোষ্ঠীগুলির জন্য প্রতিনিধি নির্বাচন করার সুযোগ আছে। বর্তমানে মাঝারি মাপের উদ্যোগগুলি স্টিয়ারিং কমিটিতে আছে। উপরন্তু, বর্তমানে যে অ্যাডভাইজারি বোর্ড গঠন করা হচ্ছে তার মধ্যে বাংলাদেশের যোগানদাররা থাকবে।

কোম্পানিগুলি নিয়মিত বৈঠক করে এবং তথ্য সাম্প্রতিক করে, এবং অ্যাকর্ডটির রূপায়ণ ও পরিচালন প্রক্রিয়ায় তাদের প্রতিক্রিয়া জানানোর সমান সুযোগ পায়।

একক কারখানাগুলির প্রশিক্ষণ ও পরিদর্শনের সমাপতিত সমস্যাগুলি অ্যাকর্ড এবং ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যানের মধ্যে কীভাবে সমাধান করা হবে?
অ্যাকর্ড তথ্য বিনিময় করার এবং ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যানের সাথে পুরোপুরি একযোগে কাজ করার প্রস্তাব দেয়। ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যান অ্যাকর্ডের আওতায় থাকা কারখানাগুলির পরিদর্শন না করতে রাজি হয়েছে।

অ্যাকর্ড টেকনিক্যাল কমিটি বর্তমানে ভবন ও নিরাপত্তা নিরিখ পুনর্বিচার করছে পরিদর্শনের সময় যাতে সেরা প্রথা প্রয়োগ করা হয় তা নিশ্চিত করার জন্য।

অ্যাকর্ডের আওতায় থাকা সকল কারখানাগুলিতে অ্যাকর্ড কীভাবে নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ রূপায়ণ করার প্রস্তাব দেয়?
অ্যাকর্ড ওয়ার্কার পার্টিসিপেশন ওয়ার্কিং গ্রুপ একটি কর্মসূচী ঠিক করছে যা বিশ্বাসযোগ্য, কার্যকরী, এবং নিরবচ্ছিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর পরিবেশন নিশ্চিত করবে, যেখানে কর্মীদের প্রতিনিধি এবং কারখানাভিত্তিক স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা সমিতিগুলি পুরোপুরি জড়িত হবে। কর্মসূচীটির রূপায়ণ ও পরিবেশনের জন্য একজন প্রশিক্ষণ সমন্বয়-সাধককে নিয়োগ করা হবে।

অ্যাকর্ডটির জন্য কত খরচ হবে?
অ্যাকর্ডের অধীন স্বাক্ষরকারী কোম্পানিগুলির জন্য দুই রকমের খরচ আছে: পরিচালন ও নিরাপত্তা বাড়ানো।

1) পরিচালন। পরিদর্শন, প্রশিক্ষণ এবং কর্মসূচীর অন্য কাজগুলি পরিচালনাসংক্রান্ত খরচের ফর্মুলা হল একটি স্লাইডিং স্কেলে বার্ষিক বাংলাদেশ পরিমাণভিত্তিক অন্য স্বাক্ষরকারীদের বার্ষিক পরিমাণের তুলনায়।

2) নিরাপত্তা বাড়ানো। ব্র্যান্ড স্বাক্ষরকারীদের নিশ্চিত করতে হবে সেফটি ইনস্পেক্টরের নির্দেশিত সংস্কার ও নিরাপত্তার অন্য উন্নতিগুলির খরচ দেবার জন্য যথেষ্ট টাকার ব্যবস্থা আছে। এই তহবিল আপোস-আলোচনা করা বাণিজ্যিক শর্ত, যৌথ বিনিয়োগ, উন্নতির জন্য সরাসরি টাকা দেওয়া, সরকার এবং অন্য দাতাদের সহায়তা বা এই প্রক্রিয়াগুলির কোন সমবায়ের মাধ্যমে সৃষ্টি করা যেতে পারে।

অ্যাকর্ড এবং ফেয়ার ফ্যাক্টরিজ ক্লিয়ারিংহাউজের মধ্যে চুক্তির আওতায় কী কী আছে?
ফেয়ার ফ্যাক্টরিজ ক্লিয়ারিংহাউজ (FFC) কোম্পানিগুলির দাখিল করা কারখানার তথ্য বিনিময় ও বিশ্লেষণ করার জন্য একটি নিশ্চিন্ত মঞ্চ দেয়। উপরন্তু, FFC একটি অনলাইন হাতিয়ার তৈরি করার ভার নেবে কোম্পানিগুলি যাতে কারখানা-ভিত্তিক তথ্য পেতে পারে।

কর্মীদের অভিযোগ প্রণালী এবং ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যান হটলাইনের মাধ্যমে কর্মীদের জানানো অভিযোগগুলি অ্যাকর্ড কীভাবে সমাধান করার প্রস্তাব দেয়?
ওয়ার্কার পার্টিসিপেশন ওয়ার্কিং গ্রুপ একটি আনুষ্ঠানিক অভিযোগ প্রণালী এবং ন্যাশনাল অ্যাকশন প্ল্যানের সাথে জড়িত হওয়ার প্রণালী তৈরি করবে।

অননুমোদিত উপ-ঠিকাদারকে কাজ দেওয়ার ক্ষেত্রে অ্যাকর্ডের কী অবস্থান?
অননুমোদিত উপ-ঠিকাদারদের কাজ দেওয়ার সমস্যা দূর করার দায়িত্ব হল অ্যাকর্ডের আওতায় থাকা একক কোম্পানি এবং তাদের জোগানদার। অ্যাকর্ড এই সমস্যাগুলি প্রতিকার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সামলাবে।

কর্মীদের আর্থিক সহায়তা দেবার জন্য অ্যাকর্ড কীভাবে বাংলাদেশ পোশাক শিল্পের প্রতিনিধি সঙ্ঘ এবং সরকারের সাথে জড়িত হওয়ার প্রস্তাব দেয়?
অ্যাকর্ড স্টিয়ারিং কমিটি বাংলাদেশ পোশাক শিল্পের প্রতিনিধি সঙ্ঘগুলির সাথে আলোচনা করছে যেমন বাংলাদেশ গারমেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন (BGMEA) কর্মীদের সহায়তা দেওয়া বিবেচনা করার জন্য যেমন আর্থিক সাহায্য যদি তার প্রয়োজন হয়। স্টিয়ারিং কমিটি অন্য অংশীদারদের সাথেও আলোচনা করেছে যেমন ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কমিটি (বিশ্ব ব্যাংকের অংশ) এবং সরকার-পরিচালিত উন্নয়ন কর্মসূচীগুলি, প্রতিকার কর্মসূচী এবং কর্মীদের সহায়তার জন্য সম্ভাব্য টাকা দেবার ব্যাপার আলোচনা করার জন্য।

© 2017 Accord on Fire and Building Safety In Bangladesh